কিভাবে নিজেকে অনলাইন ফ্রড থেকে সুরক্ষিত রাখবেন ?

আপনি কি জানেন, এই আধুনিক যুগের টেকনোলজি আপনার কত ভাবে ক্ষতি করে দিতে পারে ? আপনি নিশ্চই শুনে থাকবেন, কারো ব্যাঙ্ক একাউন্ট হ্যাক হয়ে গেছে, কারো আবার ATM হ্যাক হয়ে গেছে, কেউ আবার ব্ল্যাকমেলার দের খপ্পরে পড়েছেন, আরো কত কি।

কখনো ভেবেছেন, এগুলি আপনার সাথেও যেকোনো দিন, যেকোনো সময় ঘটে যেতে পারে ! তাই আপনার আজ প্রয়োজন নিজেকে একটু বদলে ফেলার, একটু শিখে নেওয়ার, একটু সুরক্ষিত হওয়ার ।

আপনার হয়তো শুনে বিশ্বাস হবেনা, কিন্তু এটাই সত্যি যে “কেউ আপনার কোনো ক্ষতি করতে পারবেনা অনলাইন বা ইন্টারনেট এর মাধ্যমে, যদিনা আপনি নিজে তাদের সাহায্য করেন আপনার ক্ষতি করার !”

অবাক লাগছে বিষয় টা ?

আপনি নিশ্চই বলবেন “আমাকে কি পাগলা কুকুরে কামড়েছে, যে আমি নিজের পায়ে নিজেই কুড়ার মারবো !”

না ! আপনি জেনে বুঝে তা কখনোই করবেন না। কিন্তু যদি আপনি অবগত না থাকেন তাদের ফাঁদ পাতার টেকনিক গুলি সম্পর্কে, তাহলে আপনি জানতেও পারবেন না আপনি নিজেই কিভাবে তাদের সাহায্য করছেন।

আপনাকে সকল অনলাইন ফ্রড টেকনিক গুলি জানতেই হবে ! কারো ক্ষতি করার জন্য নয়, নিজের আত্মরক্ষা করার জন্য !

by Kanchan Chatterjee
Tips To Protect Yourself from online fraud

আসুন জেনেনিন কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস যার দ্বারা আপনি নিজেকে ও নিজের ফ্যামিলি কে সুরক্ষিত রাখতে পারবেন অনলাইন ফ্রড এর হাত থেকে ।

Banking & ATM Tips

কার্ড এর মাধ্যমে পেমেন্ট বন্ধ করুন

আগেকার দিনের মতো আর মুষ্টিমেয় option নিয়ে আমাদের Money ট্রানসাকশান করতে হয়না আজকাল। কতইনা নতুন নতুন সিস্টেম উঠেছে এখন টাকা লেন-দেন করার জন্য। তাদের মধ্যেই কয়েকটি বিশ্বাস যোগ্য মাধ্যম হলো GooglePay, PhonePay এবং Paytm.

যাদের সাহায্যে আপনি আপনার UPI ID বানিয়ে অথবা মোবাইল নম্বর এর মারফত টাকার লেনদেন অতি সহজেই করতে পারেন। এক্ষেত্রে হ্যাকিং এর কোনো ভয় থাকেনা বললেই চলে। কারন, যখন আপনি UPI ID বা মোবাইল নম্বর দিয়ে ট্রানসাকশান করেন তখন আপনার Bank Details অথবা Card Details দেবার কোনো প্রয়োজন হয়না।

তাই আজ থেকেই কার্ড নম্বর ও CVV দিয়ে বিল পেমেন্ট বন্ধ করুন এবং হ্যাকিং থেকে নিজেকে দূরে রাখুন।

ATM এ লুকিয়ে PIN এন্ট্রি করুন

ATM থেকে টাকা ওঠানোর সময় চার ডিজিট এর PIN এন্টার করতে হয়। নজর রাখবেন যেন এন্টার করার সময় অন্যকেউ সেটা দেখে না নেয় ।

এটাতো হলো অতি সাধারন একটা টিপস। আসল টিপস টা হলো ক্যামেরা, যেটা ATM ঘরে লাগানো থাকে। ATM এ ঢুকেই দেখেনিন ক্যামেরা কোথায় লাগানো আছে । সাবধান থাকবেন যেন ক্যামেরা তে আপনার PIN এন্ট্রি টা রেকর্ড না হয়ে যায়।

হ্যাকার্স রা অতি সহজেই আমাদের কার্ড নম্বর এবং নাম জেনে নিতে পারেন, বাকি থাকে শুধু PIN আর CVV, যেকোনো একটা পেয়ে গেলেই আপনার একাউন্ট সাফ করে দেবে।

ফেক কল / মেসেজ / ইমেইল থেকে সাবধান থাকুন

আপনি কি কখনো কাউকে এমন ফাঁদে পা দিতে দেখেছেন ? যারা দিয়েছেন তারা হাড়ে-হাড়ে বুঝেছেন নিশ্চই ।

অনেক সময় হ্যাকার্স রা আপনার লোভ এর সুযোগ নেয়। হঠাৎ কল আসে “আপনি লাকি ড্র তে সিলেক্ট হয়েছেন, সব তথ্য দিলেই টাকা, গাড়ি, বাড়ি সব পেয়ে যাবেন !”

ওরাও জানে সবাই ফাঁসবেনা , তবুও কিছু লোভী এবং অবুঝ মানুষের সর্বনাশ এভাবেই হয়ে থাকে।
অনেক সময় আবার বলা হয় “ব্যাঙ্ক থেকে বলছি, আপনার একাউন্ট deactivate হয়ে যাবে এক্ষুনি সব তথ্য verify না করলে !” কিছু কিছু মানুষের সর্বনাশ ভয় পেয়েও হয়ে থাকে এভাবে।

এরকম দুষ্কৃতীদের হাত থেকে যদি বাঁচতে চান তাহলে একটা কথা মাথায় গেথে নিন “ব্যাঙ্ক ম্যানেজার কেন, আপনার ফিনান্স মিনিস্টার কল করলেও ব্যাঙ্ক এর কোনো তথ্য বলবেন না !”

ঠিক একই রকম ভাবে মেসেজ বা ইমেইল পাঠিয়ে থাকেন হ্যাকার্স রা। সেগুলির দিকে কোনো রকম উৎসাহ দেখাবেনা না।

মোবাইল ব্যাঙ্কিং এর সাহায্যে একাউন্ট এ নজর রাখুন

আপনার যে ব্যাংকেই একাউন্ট থাকুকনা কেন, মোবাইল ব্যাঙ্কিং টা শিখে নিন। এটা ভীষণ জরুরী।

অনেক সময় আপনার একাউন্ট এ টাকার লেনদেন ঘটলেও মোবাইল এ মেসেজ আসেনা। আপনি একটা কিন্তু-কিন্তু ভাবের মধ্যে থাকেন, ১০০% Sure হতে পারেন না । মোবাইল ব্যাঙ্কিং ব্যবহার করলে মনের মধ্যে আর কোনো কিন্তু থাকবেনা। সব সময় নজর রাখতে পারবেন আপনার একান্ত আপন ব্যাঙ্ক একাউন্ট টির ওপর।

প্রত্যেক বার ATM থেকে টাকা তোলার পর আপনার ATM কার্ড টিকে Block করেদিন মোবাইল ব্যাঙ্কিং এর মাধ্যমে। আবার যখন টাকা তুলবেন তখন তখন Unblock করে নিন। এর ফলে অন্য কেউ আপনার কার্ড, পিন সব পেয়ে গেলেও কিছুটি করতে পারবে না।

Social Activity Tips

পাবলিক এ ফটো পোস্ট করবেন না

Facebook এবং অন্য সোশ্যাল মিডিয়া তে নিজের সাথে বাকি পরিবারের ফটো আপলোড করবেন না । এতে ব্ল্যাক মেইল করতে অনেক সুবিধে হয়ে যায় ।
যদি জরুরী থাকে কাউকে আপনার পরিবারের সদস্য দের ব্যপারে জানানোর, তাহলে প্রাইভেট ম্যাসেজ করুন, কিন্তু পাবলিক এ ফটো পোস্ট করে হ্যাকার্স এবং অন্য অসাধু ব্যাক্তিদের সুবিধা করে দেবেন না ।

বাইরে বেড়াতে যাওয়ার ছবি তৎক্ষণাৎ পোস্ট করবেন না

যদি পরিবারের সকলে মিলে কোথাও বেড়াতে গিয়ে পিকচার তোলেন, তাহলে তা তক্ষুনি সোশ্যাল মিডিয়া তে আপলোড করবেন না। এক্ষেত্রে চোরেদের চুরি করতে আপনি নিজের অজান্তেই সাহায্য করেন।

কারো বাড়িতে তখনি চুরি হয় যখন বাড়িতে কেউ থাকেনা। একবার ভেবে দেখেছেন, এটা কিভাবে হয় ? আপনি ফেইসবুক এ পোস্ট করলেন “সকলে বাইরে বেড়াতে গিয়েছেন, এটা চোরেদের জন্য একটা ইঙ্গিত যে “আমরা কেউ বাড়িতে নেই, তোমাদেরকে গ্রীন সিগন্যাল দিলাম” । বাকিটা ওরাই বুঝে নেবে।


আউটডোর এ তোলা ফটো গুলি জমিয়ে রাখুন এবং বাড়িতে ফিরে সেগুলি আপলোড করুন।

Online Earning Tips

টাকা দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে অনলাইন আর্নিং এর চক্করে পড়বেন না

কোনো অনলাইন আর্নিং এর পেছনে দৌড়োবেন না, যদি সেখানে আপনার থেকে কোনো ধরণের ফিস চার্জ করা হয়।

Online Shopping Tips

ক্যাশ অন ডেলিভারী তে অনলাইন শপিং করুন

একমাত্র বিশ্বাস যোগ্য ওয়েবসাইট বা মোবাইল app এর মাধ্যমেই অনলাইন শপিং করুন।
যে ওয়েবসাইট কে বিশ্বাস করতে পারছেন না, বা নতুন বলে মনে হচ্ছে, সেখানে কোনো ভাবেই Money Transaction করবেন না ।
সেইসব ক্ষেত্রে Cash On Delivery তে অর্ডার করুন এবং জিনিস টি বাড়িতে এলে হাতে-হাতে টাকা দিন।

Tips – Beware From Blackmail

হিডেন ক্যামেরা থেকে সাবধান

শপিং করতে গিয়ে ট্রায়াল রুম এ কোনো পোশাক ট্রাই করার আগেই ভালো ভাবে দেখে নিন কোনো ক্যামেরা লুকিয়ে রাখা আছে কিনা। অনেক সময় কিছু অসাধু ব্যাবসায়ী এরকম কুকর্ম করে থাকেন আপনাকে ব্ল্যাকমেল করার জন্য।

যদি কোনো সন্দেহ হয় কিন্তু প্রমান হাতে না পান, তাহলে পোশাক ট্রাই করার দরকার নেই। একবার ভাবুন – সম্মান টা আগে, না পোশাক টা ? অনেক সময় তো অসাধু ব্যাবসায়ীরা আপনাকে না জানিয়ে ওই লুকিয়ে রেকডিং করা ভিডিও গুলি অ্যাডাল্ট ওয়েবসাইট এ ছেড়ে দেন সামান্য টাকার লোভে ।

একই জিনিস হোটেলেও হয়ে থাকে। কোথাও হোটেল বুকিং করলে বিশেষ করে বেডরুম এবং বাথরুম চেক করে নেবেন।

চ্যাটিং করার সময় নিজের ওপর কন্ট্রোল রাখুন

এখনকার দিনে কারো মোবাইল হ্যাক হয়ে যাওয়া একটি অতি সাধারণ ব্যাপার। কিছু অবুঝ মানুষ না বুঝে এমন কিছু app ইনস্টল করে নেন, যেগুলির দ্বারা প্রথমে মোবাইল এর সর্বনাশ ঘটে, তারপর মানুষের।

কারো সাথে ভিডিও চ্যাট, Text চ্যাট ইত্যাদি করার সময় সংযত থাকুন। এমন কিছু নিজের প্রিয় বন্ধুর সাথে অনলাইনে শেয়ার করতে যাবেন না যেটা অন্যকারো হাতে চলে গেলে আপনার বিপদ হতে পারে।

আপনি হয়তো বলবেন “আমার মোবাইল এ কোনো ভাবেই হ্যাক হবেনা !”
মেনে নিলাম ! কিন্তু যদি আপনার বন্ধুর মোবাইল টি হ্যাক হয়ে থাকে তখন কি হবে ? আপনাদের দুজনের Video, Chat সব চলে যাবে হ্যাকার্স দের হাতে, তারপর তারা আপনাকে ব্ল্যাকমেল করবে।

আমি আমার যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি ভারতীয় দের জন্য । কিন্তু আপনার সাহায্য ছাড়া আমার এই চেষ্টা সম্পূর্ণ ব্যার্থ । আপনার একটা শেয়ার অনেকগুলি মানুষকে আগামী বিপদের হাত থেকে বাঁচাতে পারে। এবার শেয়ার করা বা, না করা আপনার ওপর !

কিভাবে নিজেকে অনলাইন ফ্রড থেকে সুরক্ষিত রাখবেন ?
5 (100%) 4 vote[s]

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.